বেসিস এর ২০১৬-১৯ মেয়াদের কার্যনির্বাহী পরিষদের নির্বাচনে জয় পেয়েছেন ‘ডিজিটাল ব্রিগেড’

0
210

দেশের সফটওয়্যার ও তথ্যপ্রযুক্তি খাতের শীর্ষ সংগঠন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস) এর ২০১৬-১৯ মেয়াদের কার্যনির্বাহী পরিষদের নির্বাচনে জয় পেয়েছেন মোস্তাফা জব্বার ও সোনিয়া বশির কবির।

এবারের নির্বাচনে দ্য চেইঞ্জ মেকার্স ও ডিজিটাল ব্রিগেড নামে দুটি প্যানেল থেকে নয়জন জয়লাভ করেছেন।

 

[sociallocker]

নির্বাচনে জয় পেয়েছেন ডিজিটাল ব্রিগেডের ফারহানা এ রহমান। তিনি পেয়েছেন ১৮৫ ভোট, মোস্তাফা জব্বার পেয়েছেন ১৮১ ভোট, এম রাশিদুল হাসান ১৭৭ ভোট, রাসেল টি আহমেদ ১৭৫ ভোট, রিয়াদ এস এ হোসাইন ১৬৫ ভোট, মো. মোস্তাফিজুর রহমান ১৬৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।

এছাড়াও ডিজিটাল ব্রিগেডের সহযোগী সদস্য হিসেবে উত্তম কুমার পাল পেয়েছেন ৬৮ ভোট।

অন্যদিকে চেইঞ্জ মেকার্সের সোনিয়া বশির কবির ১৫২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্যানেল থেকে সৈয়দ আলমাস কবির ১৭৪ ভোট পেয়ে কার্যনির্বাহী কমিটিতে নির্বাচিত হয়েছেন।

[/sociallocker]

 

কারওয়ান বাজারস্থ বিডিবিএল ভবনের ৫ম তলায় বেসিস অডিটোরিয়ামে সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত এই নির্বাচনের ভোটগ্রহণ চলে।

ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যেই ভোট গণনা ও ফলাফল প্রকাশ করা হয়।

তিন বছর মেয়াদি কার্যনির্বিাহী কমিটি নির্বাচনে মোট ভোটার ছিল ৫১৬টি। যার মধ্যে সাধারণ ভোটার ৩৬৮ এবং অ্যাসোসিয়েট ক্যাটাগরিতে ভোটার ১৪৮ জন।

নির্বাচনে ভোট পড়েছে ৪১২টি। এর মধ্যে সাধারণ ক্যাটাগরিতে ৩০৫ ভোট এবং অ্যাসোসিয়েট ক্যাটাগরিতে ১০৭টি ভোট পড়েছে।

দ্য চেইঞ্জ মেকার্স প্যানেলে নেতৃত্বে ছিলেন মাইক্রোসফট বাংলাদেশের সোনিয়া বশির কবির। এছাড়াও প্যানেলে মোস্তফা রফিকুল ইসলাম, সুফি ফারুক ইবনে আবু বকর, সৈয়দ আলমাস কবির, আজমল হক, নাজমুল করিম চৌধুরী, সাব্বির রহমান, মো. সাইদুল ইসলাম মজুমদার ও সহযোগী সদস্য জামান খান৷

অন্যদিকে ডিজিটাল ব্রিগেড প্যানেলের নেতৃত্বে ছিলেন আনন্দ কম্পিউটারসের মোস্তাফা জব্বার। এছাড়াও প্যানেলে ছিলেন রাসেল টি আহমেদ, ফারহানা এ রহমান, এম রাশিদুল হাসান, মো. মোস্তাফিজুর রহমান, রিয়াদ এস এ হোসাইন, এ কে এম আহমেদুল ইসলাম, দেলোয়ার হোসেন এবং সহযোগী সদস্য হিসেবে উত্তম কুমার পাল।

দুটি প্যানেল ছাড়াও ছিল চার স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. এনামুল হক, রাশাদ কবির, খন্দকার আবদুল হাফিজ ও আবদুল মতিন ভূঁইয়া নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেন।

NO COMMENTS