মেয়েদের ফুটবল দিয়ে আজই শুরু

0
299

ঢাকে কাঠি পড়বে পরশু। উজ্জ্বল আলোর ঝরনাধারায় পর্দা উঠবে ২০১৬ রিও অলিম্পিকের। শেষ প্রস্তুতিতে ব্যস্ত তাই ব্রাজিলের শহরটি। আনুষ্ঠানিকভাবে অলিম্পিকের শুরুটা ৫ আগস্ট হলেও আজ থেকেই কিন্তু লড়াইয়ে নেমে পড়ছেন মহিলা ফুটবলাররা। বিষয়টি মোটেও নতুন নয়। প্রতিযোগিতার সময়টা দীর্ঘ বলে অলিম্পিক ফুটবল শুরু হয় সবার আগে। গত কয়েক আসরের মতো এবারের অলিম্পিকও শুরু হচ্ছে মেয়েদের ফুটবল দিয়ে।

প্রথম দিনেই মাঠে নামছে লন্ডন অলিম্পিকে সোনাজয়ী যুক্তরাষ্ট্র। ২০১৫ সালের বিশ্বকাপ জেতায় যুক্তরাষ্ট্রে মেয়েদের লক্ষ্য অলিম্পিক-বিশ্বকাপ-অলিম্পিক চক্র পূরণ করার। ঘরের মাঠে ব্রাজিলের মেয়েদের স্বপ্নটা আবার অন্য রকম। অলিম্পিকের প্রথম শিরোপা জিততে চান যে তারা। দুইবার শিরোপা জেতার মঞ্চে উঠেও রানার্স আপ হওয়ার যন্ত্রণা থেকে এবার মুক্তি চান মার্তারা।

১৯৯৬ সালের যুক্তরাষ্ট্রের আসর থেকে অলিম্পিকে যোগ হয়েছে মেয়েদের ফুটবল। তখন থেকে কেবল এক আসরেই সোনা জিততে পারেনি যুক্তরাষ্ট্র। ২০০০ সালে রানার্স আপ হয়েছিল তারা নরওয়ের বিপক্ষে হেরে। এবার তাই পঞ্চম সোনা জয়ের লক্ষ্য নিয়ে প্রতিযোগিতায় নামতে যাচ্ছে ‘টিম ইউএসএ’। ‘জি’ গ্রুপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে যুক্তরাষ্ট্র নামবে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে। বেলো হরিজোন্তের ম্যাচে পরিষ্কার ফেভারিট জিল এলিসের দলই। শুধু এ ম্যাচ নয়, সোনাজয়েও ফেভারিট ধরা হচ্ছে তাদের। দলে রয়েছে মিডফিল্ডার কারলি লয়েডের মতো তারকা খেলোয়াড়, যিনি গত জানুয়ারিতে জিতেছেন ফিফার বর্ষসেরা মহিলা খেলোয়াড়ের পুরস্কার। আছেন অভিজ্ঞ গোলরক্ষক হোপ সলো। যদিও সোনা জেতা সহজ হবে না বলেই মনে করছেন কোচ এলিস, ‘দলগুলোকে আলাদা ভেন্যুতে খেলতে হবে, তাই ভ্রমণ করতে হবে অনেক দূরের পথ। কঠিন একটা টুর্নামেন্ট হতে যাচ্ছে, তা ছাড়া মহিলা ফুটবল এখন অনেক উন্নতি করেছে।’ বিশ্বকাপ জেতার পর কোনো দল জিততে পারেনি অলিম্পিকের সোনা। সে কথাটাও মনে করিয়ে দিলেন তিনি, ‘জার্মানি, অস্ট্রেলিয়া, ব্রাজিল, ফ্রান্সের সঙ্গে রয়েছে বিশ্বের আরো অনেক শক্তিশালী দল। কোনো দলই এখন পর্যন্ত বিশ্বকাপের পর জিততে পারেনি অলিম্পিক শিরোপা, তাই এটা আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জের।’

আজ মাঠে নামবে স্বাগতিক ব্রাজিল মহিলা দলও। তাদের প্রতিপক্ষ চীন। ছেলেদের ফুটবলের মতো ব্রাজিলের মেয়েরাও কখনো সোনা জেতেনি অলিম্পিকে। ঘরের মাঠের আসর দিয়ে তাই আক্ষেপ ঘোচাতে চায় ব্রাজিলিয়ানরা। আর সেই মিশনে এখনো দলের ভরসার নাম মার্তা। অভিজ্ঞ এ খেলোয়াড়ের সঙ্গে আদ্রেসা আলভেস-দেবোরার মতো তরুণীদের নিয়ে শক্তিশালী স্কোয়াডই গড়েছে স্বাগতিক দলটি। ‘ই’ গ্রুপের অন্য দল দুটি সুইডেন ও দক্ষিণ আফ্রিকা। রিও অলিম্পিক শুরু হবে এই দুই দলের লড়াই দিয়ে।

‘এফ’ গ্রুপে জার্মানির প্রতিপক্ষ জিম্বাবুয়ে। দুইবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন জার্মানির অলিম্পিক শিরোপা এখনো অধরা। আক্ষেপ ঘোচানোর মিশনে এবার নামতে যাচ্ছে তারা রিওতে। এই গ্রুপ থেকে সাও পাওলোতে মাঠে নামবে কানাডা-অস্ট্রেলিয়া। চার বছর আগে লন্ডন অলিম্পিকের সেমিফাইনালে যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে সেমিফাইনালে হেরে তৃতীয় হয়েছিল কানাডা। এবারের আসরে তাই প্রতিশোধ নেওয়ার শপথ নিয়েই নামছে কানাডা।

ছেলেদের ফুটবল শুরু হবে আগামীকাল। ব্রাজিলের স্বপ্নের পথটাও শুরু হবে একই সঙ্গে। ফুটবলের প্রায় সব শিরোপা ঘরে উঠলেও অলিম্পিক সোনাটা এখনো অধরা রয়ে গেছে তাদের। দেশের সেরা খেলোয়াড় নেইমারকে দিয়ে এবার স্বপ্নটা পূরণ করতে চায় তারা। কোপা আমেরিকা বির্জসন দিয়ে অলিম্পিককেই বেছে নিয়েছিলেন নেইমার। আর সব ব্রাজিলিয়ানের মতো তিনিও যে চান অলিম্পিক আক্ষেপ মেটাতে। মূল আসরে নামার আগেই বার্সেলোনা ফরোয়ার্ড জানিয়ে রেখেছেন, মারাকানার ফাইনালে খেলার কথা। অলিম্পিক ফুটবলে তিনিই সবচেয়ে বড় তারকা। তাদের চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আর্জেন্টিনাও আছে এবারের আসরে। ২০০৮ সালের পর যারা আবার জিততে চায় সোনা।

NO COMMENTS