বিএনপির পুর্নাঙ্গ কমিটি ঘোষণা: প্রত্যাশার সঙ্গে হতাশা, গঠনতন্ত্রের লঙ্ঘন

0
323

ষষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিলের চার মাস ১৬ দিন পর ৫০২ সদস্যের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটি ঘোষণা করেছে বিএনপি। ঘোষিত এই কমিটিতে পরিস্কারভাবে সংশোধিত গঠনতন্ত্র লঙ্ঘন করে পদ দেওয়া হয়েছে একাধিকজনকে। পাশাপাশি অনুগতকর্মীরা নেতাদেরকে কাঙ্ক্ষিত পদে না দেখে হতাশার কথাও বলছেন।

এরই মধ্যে রাত আটটা পর্যন্ত দুজন নতুন দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা কমিটি থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন। যদিও বিএনপি নেতারা বলছেন, নতুন কমিটি হলে পদত্যাগ, খুশি-অখুশি খুব স্বাভাবিক বিষয়। দু/একজনের ক্ষেত্রে সিদ্ধান্ত সঠিক না হলেও মোটাদাগে কমিটিকে স্বাগত জানিয়েছেন নেতারা।

নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, নতুন কমিটিতে যোগ্য নেতারা প্রাধান্য পেলেও একাধিক ভুলভ্রান্তি রয়েছে। এমন কী একটি পদ নিয়ে তৈরি হয়েছে রহস্যও। নির্বাহী কমিটির সদস্যদের তালিকা প্রণয়নে সিনিয়রিটি মেইনটেন করা হয়নি। অমান্য করা হয়েছে গঠনতন্ত্র। যদিও বিএনপিনেতাদের যুক্তি, এক নেতা এক পদ গঠনতান্ত্রিকভাবে থাকলেও দলীয় চেয়ারপারসন তার ক্ষমতাবলে চাইলে তিনি যে কাউকে একাধিক পদ দিতে পারেন। সেহেতু, এটিকে লঙ্ঘন বলা সঠিক হবে না।

জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার জমির উদ্দীন সরকার গাজীপুর ট্রিবিউনকে বলেন, কমিটি মোটামুটি ভালো হয়েছে। অ্যাডজাস্টমেন্ট সঠিক রয়েছে। যারা এসেছেন তারা অ্যাকটিভ (সক্রিয়)। তাদের দিয়েই কাজ হবে। সাংগঠনিকভাবে আশা করি, এই কমিটি দিশা দিতে সক্ষম হবে।

পদ নিয়ে রহস্য

বিগত কমিটিতে বিএনপির কেন্দ্রীয় আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন ড. আসাদুজ্জামান রিপন। শনিবার ঘোষিত নতুন কেন্দ্রীয় কমিটিতে রিপনের পদের নাম সম্পাদক (বিশেষ দায়িত্বে)। সম্পাদক (বিশেষ দায়িত্বে) হিসেবে রয়েছেন আবু নাসের মুহাম্মদ ইয়াহিয়া।

দলটির একজন সিনিয়র নেতা বলেন, সম্পাদক বিশেষ দায়িত্বে, এমন পোস্ট রহস্যজনক।

জানতে চাইলে আসাদুজ্জামান রিপন গাজীপুর ট্রিবিউনকে বলেন, এটা দপ্তরকে জিজ্ঞাসা করুন। আমি বলতে পারবো না। পরে দপ্তরের দায়িত্বপ্রাপ্ত সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীকে ফোন করা হলে তার ফোনটি বন্ধ পাওয়া গেছে।

স্থায়ী কমিটিতে প্রাইজ পোস্ট

নতুন সদস্য হিসেবে বিএনপির স্থায়ী কমিটিতে আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী ও সালাউদ্দীনকে মনোনীত করা হয়েছে। দলের সিনিয়র এক সদস্য জানান, আমির খসরু স্থায়ী কমিটিতে এসেছেন তার পজিটিভিটির কারণে। তিনি লিয়াজোঁ করতে পছন্দ করেন।

সিনিয়র এই নেতা আরও বলেন, খসরুর শত্রু নেই; যা একটু টুকটাক আছে, সেটি চট্টগ্রামে। ফলে, পলিটিকসে ওর এনপাওয়ারম্যান্ট ভালো হবে আশা করি।

স্থায়ী কমিটিতে এসেছেন বিগত কমিটির যুগ্ম মহাসচিব সালাউদ্দিন আহমেদ। তিনি ভারতের শিলংয়ে আটক আছেন। তাকে প্রাইজ পোস্ট হিসেবেই স্থায়ী কমিটিতে রাখা হয়েছে বলে মনে করেন এই কমিটিরই একজন সদস্য।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছা জানিয়ে এই নেতা গাজীপুর ট্রিবিউনকে বলেন, প্রথমত, সালাউদ্দিনকে তার রাজনৈতিক ত্যাগের কারণে প্রাইজ পোস্ট দেওয়া হয়েছে। দ্বিতীয়ত, সাকা (সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী) চৌধুরীর অবর্তমানে পুরো কক্সবাজারের রাজনীতিতে সবচেয়ে প্রভাবশালী তিনিই। এ কারণে বিগত দিনে তার কার্যক্রম দেখেই তাকে স্থায়ী কমিটিতে এনেছেন খালেদা জিয়া।

স্থায়ী কমিটির শূন্যপদে কোন দুজন

স্থায়ী কমিটিতে নতুন সদস্য হিসেবে আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী ও সালাউদ্দিনের বাইরে আবদুল্লাহ আল নোমান, মো. শাহজাহান উপযুক্ত ছিলেন। দলের খুব একটি ক্ষুদ্র অংশ শাহ মোয়াজ্জেম হোসেনকে চেয়েছিল। নতুন স্থায়ী কমিটিতে ১৭ ও ১৮ নম্বর স্থানটি খালি রয়েছে। এর মধ্যে সাদেক হোসেন খোকা নতুন হিসেবে আসতে পারেন বলে বিএনপির কয়েকটি সূত্র জানায়। অন্য পদটিতে কে আসবেন, এ নিয়ে সুনির্দিষ্ট কোনও নেতার নাম জানা যায়নি।

সিনিয়রিটি ও এক নেতার এক পদ লঙ্ঘন

বিএনপির নতুন কমিটিতে সিনিয়রিটি লঙ্ঘনের অভিযোগ উঠেছে। পাশাপাশি গঠনতন্ত্র অমান্যের কথা বলছেন অনেকে। এর মধ্যে ছাত্রদল সভাপতি রাজিব আহসান, সাধারণ সম্পাদক আকরামুল হাসান, সহসভাপতি মামুনূর রশীদকে নির্বাহী কমিটির সদস্য করা হয়েছে। ছাত্রদলের দায়িত্বে থেকে কমিটিতে তাদের স্থান পাওয়া নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। এক্ষেত্রে সিনিয়র অনেক নেতাদের নাম পরে দিয়ে তাদের নাম ওপরের দিকে সংযুক্ত করা হয়েছে। এছাড়া এক নেতার এক পদ থাকার কথা থাকলেও সমান্তরালভাবে দুটি পদ এখন তাদের দখলে। এ নিয়ে খোদ বিএনপি ও ছাত্রদলে প্রশ্ন উঠেছে। ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় এক নেতার মন্তব্য, ছাত্রদল কি তাহলে নেতৃত্ব শূন্য।এসব বিষয়ে কথা বলতে চেয়ে ফোন করা হলে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের ফোনটি বন্ধ পাওয়া গেছে।

সিনিয়রটি লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে পদত্যাগ

বিএনপির সদ্য ঘোষিত কমিটির সহপ্রচার সম্পাদক পদ থেকে নিজের নাম প্রত্যাহার চেয়েছেন সাবেক সহদপ্তর সম্পাদক শামীমুর রহমান। তিনি নিজেই গাজীপুর ট্রিবিউনকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

শামীমুর রহমান বলেন, আমি পাঁচ মাসের বেশি সময় জেলে ছিলাম। ১৬ ঘণ্টা রাজনীতি করেছি। ছিলাম সহদপ্তর। এখন আরও নিচের পদে সহপ্রচার করা হয়েছে। আমাকে অবমূল্যায়ন করা হয়েছে। তাই, মহাসচিব বরাবর চিঠি দিয়ে নিজের নাম প্রত্যাহার চেয়েছি।

তিনি জানান, তাকে করা হয়েছে তিন নম্বর সহপ্রচার সম্পাদক। আর এক নম্বর সহপ্রচার সম্পাদক করা হয়েছে ছাত্রদলের সাবেক নেতা আমিরুল ইসলামকে; তিনি শামীমের কনিষ্ঠ।

গাজীপুর ট্রিবিউনের কাছে বক্তব্য দেওয়ার সময় শামীমকে সংক্ষুব্ধ দেখা গেছে।

আলোচিতদের যারা কাঙ্ক্ষিত পদ বঞ্চিত

সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরকে বিএনপির নতুন কমিটির কেন্দ্রীয় সদস্য করা হয়েছে। তেমনি সাবেক সহদপ্তর সম্পাদক আবদুল লতিফ জনিকেও সদস্য করা হয়েছে। তারেক রহমানের ঘনিষ্ঠজন বলে পরিচিত ডা. মাজহারুল ইসলাম দোলনও হয়েছেন সদস্য। মির্জা আব্বাসের স্ত্রী আফরোজা আব্বাসকে দেওয়া হয়েছে মহিলা বিষয়ক সহসম্পাদকীয় পদ।

সাংবাদিক থেকে রাজনীতিক

সাংবাদিক থেকে সরাসরি রাজনীতিক পরিচয়ে আসলেন শওকত মাহমুদ। বিগত কমিটিতে বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলে থাকলেও তিনি এখন বিএনপির সর্বশেষ ভাইস চেয়ারম্যান।

NO COMMENTS